কৌতুক

জলিল সাহেবের জ্বালায় ক্লাবের সকল সদস্যই অতিষ্ঠ। কথা বলা শুরু করলে আর থামতে চান না।
একদিন জলিল সাহেব ক্লাবের সেক্রেটারিকে বললেন, হাসান সাহেব আমাকে অপমান করেছেন। বলেছেন এই ক্লাব ছেড়ে চলে গেলে উনি আমাকে নগদ এক হাজার টাকা দেবেন। এখন বলুন আমার কী করা উচিত?
সেক্রেটারি হেসে বললেন, টিকে থাকুন। আমি নিশ্চিত এরপর দাম আরো বাড়বে।

এক মানসিক রোগী ডাক্তারের কাছে এলেন।
: ডাক্তার সাহেব, সর্বনাশ হয়ে গেছে। কাল স্বপ্নের মধ্যে একটা ঘোড়া গিলে ফেলেছিলাম, সেটা এখন বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছে। আপনি আমায় বাঁচান।
ডাক্তার ইনজেকশন দিয়ে রোগীকে ঘুম পাড়িয়ে দিলেন। তারপর পাশের আস্তাবল থেকে একটা সাদা ঘোড়া এনে ঘরের সামনে বেঁধে রাখলেন।
রোগীর ঘুম ভাঙার পর ডাক্তার বলেন, আর কোনো কষ্ট হবে না আপনার। ওই দেখেন অপারেশন করে পেট থেকে ঘোড়া বের করে ফেলেছি।
রোগী হতাশ হয়ে বললেন, আমি তো একটা কালো ঘোড়া গিলেছিলাম।

তারকা অভিনেতা এজাজুল ইসলামের প্রিয় কৌতুক:
মাঝেমধ্যে সমুদ্রে বেড়াতে যাই। তখন এই কৌতুকটা মনে পড়ে।
এক ব্যক্তি আরেকজনকে প্রশ্ন করছে।
আচ্ছা সমুদ্রের মাছ কি কখনো ঘামে?
অবশ্যই ঘামে। না ঘামলে সমুদ্রের পানি লোনা হয় কী করে!
আমি কৌতুকপ্রিয় মানুষ হলেও কৌতুক খুব বেশি মনে রাখতে পারি না। তবে বিচিত্র কিছু ঘটনার মুখোমুখি হলে এই কৌতুকটা মনে পড়ে-
দুই বন্ধু পার্কের বেঞ্চে বসে আছে। ঠিক তাদের পাশে আরেকটি বেঞ্চে বসে আছে সুন্দরী একটা মেয়ে। তো এক বন্ধু উঠে মেয়েটিকে বলতে গেল ‘আই লাভ ইউ।’ বলা শেষে একটু পর ফিরে এল। পাশের বন্ধুটি জানতে চাইল মেয়েটি কী বলল?
বন্ধু উত্তর দিল, ‘মেয়েটি কানে কম শোনে।’
মানে?
আমি বললাম, ‘আই লাভ ইউ।’ আর উত্তর দিল, আমার পায়ের স্যান্ডেল কিন্তু বেশ শক্ত।
এ সময়ের বিশ্ববাজারের অবস্থা নিয়ে আমার একটা পছন্দের কৌতুক আছে-
পৃথিবীতে সবকিছুর দাম বেড়েছে কিন্তু কেরোসিনের দাম বাড়েনি কেন?
বন্ধুর কাছে আরেক বন্ধু জানতে চাইল। বন্ধু উত্তর দিল, সারা পৃথিবীর অবস্থাই তো কেরোসিন। দাম বাড়ার আর কী আছে।
এই কৌতুকটা থানার সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় আমার মনে হয়-
এক ভদ্রলোক একদিন ঘুম থেকে উঠে দেখল তার বারান্দায় একটা গ্রেনেড। সঙ্গে সঙ্গে থানায় ফোন করল।
ভাই আমার বাড়ির বারান্দায় একটা গ্রেনেড দেখতে পাচ্ছি।
থানা থেকে উত্তর দিল, তিন দিন অপেক্ষা করুন। যদি কেউ নিতে না আসে তাহলে ওটা আপনি নিজের কাছে রেখে দিতে পারেন।

মন্তব্য