ইচ্ছে হলেই মুছে ফেলা যাবে স্মৃতি!

brain

ইচ্ছে হলেই মস্তিষ্ক থেকে মুছে ফেলা যাবে স্মৃতি। আবার যখন তখন ফিরিয়েও আনা যাবে। নিজের মগজ ধোলাইয়ের রসায়ন এখন মানুষের নাগালে। মস্তিষ্কের স্মৃতি ধরে রাখার জটিল রসায়নটি আবিষ্কার করে ফেলেছেন সুইজারল্যান্ডের একদল চিকিৎসাবিজ্ঞানী। চিকিৎসাশাস্ত্রে, বিশেষ করে স্মৃতিভ্রংশ রোগে আক্রান্তদের চিকিৎসায় এ আবিষ্কারকে এক যুগান্তকারী সাফল্য বলেই আখ্যা দিচ্ছেন বিশ্বের তাবড় চিকিৎসকরা। ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ইকোলে পলিটেকনিক ফেডারেল ডি লুজানে বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক দীর্ঘদিন ধরেই মস্তিষ্কের স্মৃতি ধরে রাখা ও মুছে যাওয়ার রসায়নটি খুঁজে বের করতে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। তাদের মূল গবেষণার বিষয় ছিল, ঠিক কোন প্রক্রিয়ায় মস্তিষ্ক স্মৃতি জমা রাখে এবং ভুলে যায়। বিজ্ঞানীদলের প্রধান উলফার্ম গার্স্টনার জানাচ্ছেন, এটি একটি জটিল প্রক্রিয়া। নাম মেমরি অ্যাসেম্বলিজ। মস্তিষ্কে নিউরোনের প্রচুর নেটওয়ার্ক আছে। বহু সিনাপসি (এক ধরনের নার্ভাস সিস্টেম, যার মাধ্যমে নিউরোন ব্রেনে সিগন্যাল পাঠায়)-এর সঙ্গে ওই নেটওয়ার্কগুলো যুক্ত। এভাবে প্রত্যেকটি স্মৃতির অ্যাসেম্বলিজ তৈরি হয়। যখনই মস্তিষ্ক কোনো স্মৃতি মনে করে, সেই স্মৃতির নির্দিষ্ট অ্যাসেম্বলিজ গোটা বিষয়টির জোগান দেয়।

ইঁদুরেরওপরবিজ্ঞানীরাগবেষণাচালিয়েদেখেছেন, ইঁদুরযখনঘুমোচ্ছে, কীভাবেতারমস্তিষ্কেরপ্রক্রিয়াগুলোরপরিবর্তনহচ্ছে।ইঁদুরেরমস্তিষ্কেসেইপ্রক্রিয়াপ্রয়োগকরেবিজ্ঞানীরাঅভূতপূর্বসাফল্যপেয়েছেন।তাদেরবক্তব্য, ওইএকইপ্রক্রিয়ায়মানুষেরমস্তিষ্কথেকেস্মৃতিমুছেফেলাযাবে, কিংবাপুরনোস্মৃতিফিরিয়েআনাসম্ভবহবেঅদূরভবিষ্যতেই।গাণিতিকওবৈজ্ঞানিকপ্রক্রিয়ায়এখনডাক্তাররাইনিয়ন্ত্রণকরতেপারবেনমানুষেরমস্তিষ্ক। -তথ্যসূত্র : যুগান্তর

মন্তব্য