ঈদ নিয়ে শাড়ি হাউজে প্রতিবারের মতো এবারও ব্যাপক প্রস্তুতি

Saree House

বিশ্বজুড়ে মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ঈদুল-ফিতর আসন্ন। ঈদের আয়োজন পূর্ণ করতে বাঙালি নারীর একান্ত আবশ্যিক পোশাক হলো শাড়ি। প্রবাসজীবনে ঈদের আয়োজনকে সর্বাঙ্গীন করতে টরন্টোর ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান শাড়ি হাউস প্রতিবারের মতো এবারও প্রস্তুত। ঈদের প্রসস্তুতি বিষয়ে জানতে শাড়ি হাউসের কর্ণধার রিঙ্কির মুখোমুখি হয়েছিল প্রবাসী কণ্ঠ।

প্রবাসী কণ্ঠ: জুন মাসের শেষ সপ্তাহেই এবার ঈদ অনুষ্ঠিত হবে। ঈদ নিয়ে শাড়ি হাউজ কী কী পরিকল্পনা করছে তা নিয়ে যদি কিছু বলেন।

রিঙ্কি রায়: ঈদ নিয়ে শাড়ি হাউজে প্রতিবারের মতো এবারও আমরা ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছি। কন্টেইনার এসে গেছে বিচিত্র সব শাড়ির বাহার নিয়ে। আরও মাল পথে আছে। রোজার দ্বিতীয় সপ্তাহেই এসে যাবে আশা করছি।

প্র.ক: নতুন কী কী শাড়ি থাকছে এবার?

রি.রা: তালিকা দিয়ে বললে বলা যায় পঞ্চম পল্লী, মঙ্গলগিরি, বেনারসী, কাঞ্জিভরম, সিল্ক গাদোয়াল, পৈথানী, বোমকাই, ইক্কত, রাজকোট, তসর, জামদানী, ডিজাইনার শাড়ি, টিস্যু কাতান।

প্র.ক: নিশ্চয়ই এর বাইরে আরও অনেক শাড়ি থাকছে?

রি.রা: অবশ্যই। শাড়ি হাউস সব সময় ভিন্ন ভিন্ন রুচির মানুষের পছন্দকে মূলায়ন করে। আর তাই বিচিত্র ব্যবস্থা রাখে যাতে কোনো সম্মানিত ক্রেতাকেই ফেরত যেতে না হয়। ঈদকে সামনে রেখে আমরা আরও রাখছি কোজাগরী, মহেশ্বরী সিল্ক, আসাম সিল্ক, গরোদ, পাটোলা সিল্ক, জারদৌসি বেনারসি, বেঙ্গল সিল্ক, ফেন্সি জর্জেট, বুটিক শাড়ি, তাঁত শাড়ি এবং হাতের কাজের শাড়ি।

প্র.ক: হাতের কাজের শাড়ির ব্যাপারটা একটু ব্যাখ্যা করবেন?

রি.রা: যেমন ধরুন শান্তিনিকেতনের বিখ্যাত একটি শাড়ি আছে যেটা কাঁথা স্টিচ নামে খুবই পরিচিত। এই শাড়ির জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে। এই শাড়ি সাধারণভাবে সিল্ক ও তসরের হয়। এবার আমরা এটির কটনেরও আনিয়েছি।

প্র.ক: আচছা, সবাই  যে বলে শাড়ি হাউসে এক্সক্লুসিভ শাড়ি পাওয়া যায়। সে বিষয়ে কিছ বলবেন?

রি.রা: সারা বছর ধরেই ভারতের বিভিন্ন মার্কেট থেকে আমরা এক্সক্লুসিভ শাড়ি সংগ্রহ করি কানাডার বন্ধুদের জন্যে। যেমন ধরুন ভাগলপুরি সিল্ক, বিষ্ণুপুরের বালুচুরি, মটকা তসর, গঙ্গা-যমুনা পাড়ের শাড়ির এখন ভীষণ চাহিদা। পাটলি বেনারসি, মিনাকারি বেনারসি, ফ্যান্সি পিওর সিফন, পিওর সিল্কের সাউথ চেক, তসর পিওর সাউথ সিল্ক যে কোন শাড়ি-প্রেমীকে আনন্দ দেবে।

প্র.ক: প্রবাসে তো শাড়ির সাথে ব্লাউজ মেলানো কঠিন কাজ। সে ব্যাপারে আপনাদের ভাবনা কী?

রি.রা: কাজটা কঠিন, সন্দেহ নেই। আর সে জন্যেই ঈদ উপলক্ষ্যে আমরা হরেক ডিজাইনের ফ্যাসন ব্লাউজ আনিয়েছি। শাড়ির উপযোগী ব্লাউজ না হলে তো সৌন্দর্য সত্যিকার প্রকাশিত হতে পারে না। আর সেজন্যেই নতুন নতুন ফ্যাসনের ব্লাউজ আনা হয়েছে। শাড়ি-ব্লাউজের সাথে ম্যাচ করে পরার জন্যে অলঙ্কারের সম্ভারও রেখেছি আমরা।

প্র.ক:  একটা অন্যরকম প্রশ্ন করতে চাই। আমাদের যে কোনো অনুষ্ঠানে আমাদের নারীরা দেখি শাড়ি হাউস ছাড়া আর কিছু বোঝেন না। এর পেছনের রহস্য কী?

রি.রা: আসল কথা হলো শাড়ি হাউস নারীর পছন্দ বোঝে। সেই পছন্দ অনুযায়ী কলকাতা থেকে শাড়ি সংগ্রহ করে। আর তাই আমাদের বন্ধুরা আমাদেরকে এমন গভীরভাবে পছন্দ করে।

প্র.ক: নারীদের শাড়ির কথাতো শুনলাম। ঈদ উপলক্ষে পুরুষদের জন্যে নতুন কোনো পাঞ্জাবী এলো?

রি.রা: শাড়ি হাউস খুব ভালো করেই জানে ঈদে পুরুষের জন্যে কেমন পাঞ্জাবী প্রয়োজন। রুচিশীল পুরুষের পছন্দকে মাথায় রেখে আমরা আনিয়েছি বর্ণিল সব পাঞ্জাবী। আমাদের বিশ্বাস এবারের সামারে পাঞ্জাবীর সাথে মানানসই সামার কোট যে কোনো পুরুষকে করবে অধিক আকর্ষণীয়। আর তাই সংগ্রহ করা হয়েছে অনেক রঙের, অনেক ফ্যাসনের কোট।

প্র.ক: অনেক ধন্যবাদ আপনাকে প্রবাসী কণ্ঠকে সময় দেবার জন্যে।

রি.রা: আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ। পবিত্র রমজানের মাসে সবাই সুস্থ থাকুন এই কামনা করি। ব্যক্তিগতভাবে আপনাকে অগ্রীম ঈদ মোবারক জানাই। প্রবাসী কণ্ঠের মাধ্যমে সকল বন্ধুকেও অগ্রীম ঈদ মোবারক জানাচ্ছি।

 

মন্তব্য