১১তম টরন্টো বাংলা বই মেলার সফল সমাপ্তি

Boi Mela 3Boi Mela 2Boi Mela 5Boi Mela 6Boi Mela 4বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে গত ৫ আগষ্ট ১১তম টরন্টো বাংলা বই মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে গেল। ৯ ডজ রেডে অবস্থিত দ্যা রয়েল ক্যানাডিয়ান লিজিয়ন হল এ সকাল ১০.০০ টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত চলে এই উৎসব মুখর মেলা।
সকাল ১১টায় ফিতা কেটে বই মেলার শুভ উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি বাংলাদেশের অন্যতম কবি আসাদ চৌধুরী। উদ্বোধনী অনুুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট ছড়াকার ও শিশু সাহিত্যিক লুৎফর রহমান রিটন।
মেলার উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশন করেন টরন্টোর অন্যতম জনপ্রিয় নৃত্যস্কুল ‘সুকন্যা নৃত্যাঙ্গণ’ এর শিল্পীবৃন্দ। নৃত্য পরিচালনায় ছিলেন সুকন্যা নৃত্যাঙ্গণের পরিচালক অরুনা হায়দার। মেলায় উদ্বোধনী কবিতা পাঠ করেন অরুনা হায়দার ও দিলারা নাহার বাবু।
উদ্বোধনী বক্তৃতায় মেলার প্রধান অতিথি কবি আসাদ চৌধুরী বাঙ্গালীর ইতিহাস, সমাজ, সংস্কৃতি ও সমকালীন পরিস্থিতি নিয়ে এক দীর্ঘ কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন।
মেলার বিশেষ অতিথি লুৎফর রহমান রিটন তাঁর স্বভাব সুলভ মন মুগ্ধকর বক্তব্য রাখেন। তিনি বই ও বইমেলা সহ তরুন প্রজন্ম সম্পর্কে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অভিমত প্রকাশ করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন কবি মেহরাব রহমান। তাকে সহোযোগিতা করেন জামান হাসিনা ও দিলারা নাহার বাবু।
কানাডার ১৫০ তম জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষে মেলায় এক উন্মুক্ত চিত্রাঙ্গণ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতাটি বয়সভিত্তিক তিনটি শাখায় বিভক্ত ছিল। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন শিশু কিশোরদের চিত্রাঙ্কণ শিক্ষা কেন্দ্র ‘সম্পান’ এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক নূরুন নাহার সুপ্তি। তাঁকে বিচারক হিসেবে সহযোগিতা করেন ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি’র চিত্রকলা বিভাগের শেষ বর্ষের ছাত্রী নীলাদ্রি নির্ঝরীনি কলতান। চিত্রাঙ্গণ প্রতিযোগিতায় ১ম, ২য়, ও ৩য় স্থান অধিকারীদের মধ্যে পুরস্কার ও প্রধান অতিথির স্বাক্ষর সম্বলিত সনদ পত্র প্রদান করা হয় টরন্টো বাংলা বইমেলার পক্ষ থেকে ।
মধ্যাহ্ন বিরতির পর দুপুর ২.৩০ থেকে ৪.৩০ পর্যন্ত বিরতিহীন ভাবে চলে উত্তর আমেরিকা কবিতা উৎসব। এই উৎসবে সভাপতিত্ব করেন কবি রূমানা চৌধুরী। এই সময় মঞ্চে উপবিষ্ঠ ছিলেন ১১তম টরন্টো বাংলা বই মেলার প্রধান অতিথি কবি আসাদ চৌধুরী ও বিশেষ অতিথি ছড়াকার লুৎফর রহমান রিটন। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন কবি মেহরাব রহমান।
বই মেলার আলোচনা পর্বে বিষয় ছিল “প্রবাসে সাহিত্য ও সংস্কৃতি ভাবনা”। এতে অংশগ্রহন করেন মেলার প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথি সহ সৈকত রুশদী হক ও সাদী আহমেদ। এই পর্বে সৈকত রুশদী হক তার একটি লেখা পাঠ করে শুনান যা নির্ধারিত সময়ে দিতে না পারায় বই মেলা উপলক্ষে প্রকাশিত স্যুভেনিরে ছাপানো সম্ভব হয়নি। আলোচনা অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন লেখক জসিম মল্লিক।
মেলায় অতিথি পর্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব জয়দেব সরকার। তিনি মেলার অব্যাহত সাফল্য কামনা করেন। এই পর্বটি সঞ্চালনায় ছিলেন মোহাম্মদ আশরাফ আলী। তাঁর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানটি বিশেষ মাত্র পায়।
টরন্টো বাংলা বই মেলাকে স্মরনীয় করে রাখার জন্য আয়োজক অন্যমেলার পক্ষ থেকে উত্তরীয় প্রদান করা হয়। মেলার প্রধান ও বিশেষ অতিথি সহ মেলার জন্ম লগ্ন থেকে যারা বিশেষ অবদান রেখে আসছেন তাদেরকে উত্তরীয় পরিয়ে দেন মেলার প্রধান আয়োজক সাদী আহমেদ। প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি ছাড়া আর যাদেরকে উত্তরীয় প্রদান করা হয় তারা হলেন সঙ্গীত শিল্পী রনি প্রেন্টিস রয়, কবি রুমানা চৌধুরী, সাংস্কৃতিক ব্যক্তত্ব জয়দেব সরকার ও চিত্র শিল্পী সৈয়দ ইকবাল।
এর পর মেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বিশেষ কাব্য নৃত্য “কাঁদে বিস্তীর্ন বনভূমি” পরিবেশিত হয়। কাব্য নৃত্যের পরিচালনায় ছিলেন কবি মেহরাব রহমান। নৃত্য পরিবেশনায় ছিলেন সুকন্যা নৃত্যাঙ্গন এর শিল্পীবৃন্দ এবং পরিচালনায় অরুনা হায়দার। এই কাব্য নৃত্যটির নান্দনিক পরিবেশনা সকল দর্শককে বিমহিত ও মুগ্ধ করে।
অনুষ্ঠানে বিপ্লব কর এর নৃত্যকলা কেন্দ্রের শিল্পীবৃন্দও নৃত্য পরিবেশনা করেন।
মেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত শিল্পী স্বনামখ্যাত সারা বিল্লাহ্ এবং শহিদ খন্দকার টুকুর সঙ্গীত পরিবেশনা দর্শক স্রোতার প্রশংসা অর্জন করে।
১১তম টরন্টো বাংলা বইমেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটির সামগ্রিক পরিকল্পনা ও তত্ত্বাবধানে ছিলেন জামানা হাসিনা। পরিশেষে বাংলাদেশ ও কানাডার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে ১১তম টরন্টো বাংলা বই মেলার সমাপ্তি টানা হয়।
১১তম টরন্টো বাংলা বই মেলা উপলক্ষে একটি সুদৃশ্য স্মরনিকা প্রকাশ করা হয়। স্মরনিকাটির প্রচ্ছদ আঁকেন ঢাকা’র চিত্র শিল্পী অভিজিৎ দাশ এবং সম্পাদনা করেন ড. মাহতাব শাওন। স্মরনিকাটিতে মুদ্রণজনিত কিছু ত্র“টি থাকার কারণে সম্পাদক মহোদয় ব্যক্তিগতভাবে সকল পাঠকের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।
১১তম টরন্টো বাংলা বই মেলার উদ্যাপন পরিষদ ছিল নি¤œরূপ:
আহ্বায়ক: শেখ এস আহমেদ সাদী
প্রধান সমন্বয়ক: মোহম্মদ আশরাফ আলী
সহকারী সমন্বয়ক: জামানা হাসিনা
স্মরনিকা সম্পাদক: ড. মাহতাব শাওন
আন্তর্জাতিক যোগাযোগ ও প্রচার: জসিম মল্লিক
কবিতা উৎসব: মেহরাব রহমান
স্যুভেনির এর প্রচ্ছদ: শুভজিৎ দাশ
মঞ্চ সজ্জ্া: ডাঃ সাইদা বারী
১১তম টরন্টো বাংলা বই মেলার সকল প্রকাশনা ও প্রচারনায় যাদেরকে বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ দেওয়া হয় মেলা উদ্যাপন পরিষদের পক্ষ থেকে তাঁরা হলেন:-
“সাপ্তাহিক দেশের আলো, সাপ্তাহিক ভোরের আলো, বাংলা কাগজ, প্রবাসী কণ্ঠ, নতুন দেশ ও দেশী বায়স্কোপ।
চিত্র ধারণ ও রেকর্ড এ নন্দন টি ভি এবং নাদিম ইকবাল ৪ ঋঊঝঞ গঊউওঅ.

সল্প সময়ে স্মরনিকা তৈরির জন্য প্রাইম ডিজাইন এর কর্ণধার জনাব আবু ফাত্তাহ কে বিশেষ ধন্যবাদ জানানো হয়। – প্রেস বিজ্ঞপ্তি

মন্তব্য