মুক্তিযুদ্ধের অবিদিত ইতিহাস জানতে হলে মুস্তফা চৌধুরীর ‘৭১-এর যুদ্ধশিশু’ বইটি পড়তে হবে

’৭১-এর যুদ্ধশিশুর লেখক কানাডাপ্রবাসী মুস্তফা চৌধুরীকে ঢাকায় সংবর্ধনা

Mustafa Chowdhury 3

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন কানাডাপ্রবাসী মুস্তফা চৌধুরী

কানাডাপ্রবাসী মুস্তফা চৌধুরীর ‘৭১-এর যুদ্ধশিশু – অবিদিত ইতিহাস’ বইটি বাদ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস অসম্পূর্ণ। গত ৫ জানুয়ারী শুক্রবার ঢাকায় আয়োজিত বাংলাদেশ গ্রন্থসুহৃদ সমিতির এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন সাবেক তথ্যমন্ত্রী, বিশিষ্ট রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ড. মিজানুর রহমান শেলী।
‘৭১-এর যুদ্ধশিশু- অবিদিত ইতিহাস’ গ্রন্থের লেখক কানাডাপ্রবাসী মুস্তফা চৌধুরীকে সংবর্ধনা দিয়েছে বাংলাদেশ গ্রন্থসুহৃদ সমিতি। রাজধানীর বাড্ডার বেরাইদ গণপাঠাগারে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি গ্রন্থসুহৃদ এমদাদ হোসেন ভূঁইয়া। প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক তথ্যমন্ত্রী, বিশিষ্ট রাষ্ট্রবিজ্ঞানী এবং গ্রন্থটির প্রকাশনা সংস্থা একাডেমিক প্রেস অ্যান্ড পাবলিশার্স লাইব্রেরির চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান শেলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট শিশু সাহিত্যিক ও দৈনিক যুগান্তরের ফিচার সম্পাদক রফিকুল হক দাদুভাই এবং মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ভাইস-চেয়ারম্যান ও এফবি ফুটওয়্যার লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর মো. হেদায়েতুল্লাহ (রন)।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মিজানুর রহমান শেলী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের অবিদিত ইতিহাস জানতে হলে সবাইকে অবশ্যই মুস্তফা চৌধুরীর ‘৭১-এর যুদ্ধশিশু – অবিদিত ইতিহাস’ বইটি পড়তে হবে। অথচ দীর্ঘদিন এই ইস্যুটি সবার চোখের আড়ালে থেকে গিয়েছিল। লেখক বিষয়টিকে নিয়ে যে শ্রম ও নিষ্ঠার পরিচয় দিয়েছেন সেজন্য জাতি তার কাছে কৃতজ্ঞ।
বিশেষ অতিথি রফিকুল হক দাদুভাই সবাইকে বইটি পড়ার এবং সংগ্রহে রাখার পরামর্শ দেন। বিশেষ অতিথি নবীন শিল্পপতি মো. হেদায়েতুল্লাহ (রন) বলেন, বইটি মুক্তিযুদ্ধে আমাদের মা-বোনদের অসামান্য ত্যাগের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। আমরা বীরাঙ্গনাদের কাছে বিশেষভাবে ঋণী।

Mustafa Chowdhury 4

সম্মাননা গ্রহণ করছেন লেখক মুস্তফা চৌধুরী

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে সংগঠন দুটির পক্ষ থেকে চার গুণীকে ‘গ্রন্থসুহৃদ’ সম্মাননা পদকে ভূষিত করা হয়। তারা হলেন- মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক গবেষণায় লেখক মুস্তফা চৌধুরী, সৃজনশীল প্রকাশনা শিল্পে ড. মিজানুর রহমান শেলী, শিশু সাহিত্যে রফিকুল হক দাদুভাই এবং গ্রন্থাগার আন্দোলনে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম। নজরুল ইসলাম অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারেননি। অন্য তিনজনের হাতে পদক তুলে দেন হেদায়তেুল্লাহ রন।
উল্লেখ্য যে, মুস্তফা চৌধুরী রচিত ‘৭১ এর যুদ্ধশিশু – অবিদিত ইতিহাস’ বইটি একাডেমিক প্রেস এন্ড পাবলিশার্স লাইব্রেরী থেকে প্রকাশিত হয়েছে ২০১৫ এর একুশের বইমেলায়। ‘৭১- এর যুদ্ধশিশু অবিদিত ইতিহাস শীর্ষক বইটা কোনো সাদামাটা গবেষনা গ্রন্থ নয়; বরং এটি উচ্চতর মানবিক চেতনাকে উজ্জীবিত এবং শিশু অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে এক গবেষণাধর্মী প্রামাণ্য দলিল বটে। কেননা গ্রন্থটি বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, সুইজারল্যান্ড এবং কানাডাতে প্রাপ্ত প্রামাণিক দলিলাদির উপর ভিত্তি করে রচিত।
মুস্তফা চৌধুরী ইতিপূর্বে আরো কয়েকটি সংগঠন থেকে বিশেষ সম্মাননা পেয়েছেন তার রচিত গ্রন্থটির জন্য। বাংলাদেশের বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে তার বিশেষ সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়। বিশেষ সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয় টরন্টো থেকে প্রকাশিত প্রবাসী কণ্ঠ ম্যাগাজিনেও।
বাংলাদেশী কানাডীয় জনাব মুস্তফা চৌধুরী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজী সাহিত্যে এম এ করার পর কিছু সময় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ইংরেজী বিভাগে অধ্যাপনা করেন। এরপর তিনি কানাডার University of Western Ontario থেকে Library & Information Science এবং Carleton University,Ottawa,Canada থেকে Canadian History-তে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন। দীর্ঘ ৩৪ বছর কানাডীয় ফেডারেল সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে কাজ করে লেখক ২০১১ সালে অবসর গ্রহন করেন। একজন সফল পেশাজীবী হিসেবে তার ত্যাগ, সৃজনশীলতা এবং পাবলিক সার্ভিসে নানা বিষয়ে তিনি যে অবদান রেখেছেন তার জন্য তিনি কানাডীয় সরকারী এবং বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থা থেকে ভূয়সী প্রশংসা এবং পুরষ্কার লাভ করেন। -সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

Photo Credit: Amit Ghose, Academic Press and Publishers Library.

মন্তব্য